মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

চিতলমারী উপজেলার পটভূমি

চিতলমারীউপজেলার পটভূমিঃ চিতলমারী একটি পুরাতন জনপদ। উনবিংশ শতাব্দীর সত্তর দশকেরদিকে মধুমতি নদীর তীরে এখানে জনপদের সমাগম হয় এবং একটা ছোট ব্যবসা-বানিজ্যকেন্দ্র গড়ে ওঠে। এখান থেকে চাউল রপ্তানি করা হতো।চিতলমারীর গুরুত্ব বেড়েযাওয়ায় বাগেরহাট সদর উপজেলা,কচুয়া উপজেলা এবং মোল্লাহাট উপজেলার অংশবিশেষসমন্বয়ে ১৯৮১ খ্রিস্টাব্দে চিতলমারী থানা সৃষ্টি হয়। এর আগে চিতলমারীবাগেরহাট থানার অধীন চিতলমারী ইউনিয়ন হিসাবে গঠিত ছিল।চিতলমারী থানা ১৯৮৩খ্রিস্টাব্দে ০৭নভেম্বর তারিখে উপজেলায় উন্নীত হয়।চিতলমারী উপজেলারসর্বপ্রথম উপজেলা নির্বাহী অফিসার ছিলেন জনাব নুরুল হুদা চৌধুরী।১৯৮৫খ্রিস্টাব্দে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন হওয়ার পর চিতলমারীউপজেলা পরিষদের প্রথম নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন জনাব কালিদাস বড়াল।

 

উপজেলারঅবস্থানঃ চিতলমারী উপজেলা ২২°৩৩' হতে ২২°৪১' উত্তর অক্ষাংশের ভিতরে  এবং  ৮৯°৪৬' হতে  ৮৯°৫৭' পুর্ব দ্রাঘিমাংশের ভিতরে অবস্থিত। চিতলমারী উপজেলারউত্তরে মধুমতি নদী, দক্ষিনে কচুয়া ও বাগেরহাট সদর উপজেলা,পুর্বে পিরোজপুরজেলার নাজিরপুর উপজেলা,পশ্চিমে মোল্লাহাট ও ফকিরহাট উপজেলা।চিতলমারীউপজেলার আয়তন ১৯২ বর্গ কিলোমিটার(৭৪'১৬ বর্গ মেইল)।

 

চিতলমারীউপজেলার নামকরণঃ চিতলমারী উপজেলার নামকরণ সর্ম্পকে সঠিক কিছু বলা সম্ভবনয়।তবে পুরোনকালের জনশ্রুতি এই যে চিতলমারী উপজেলা মধুমতি,চিত্রা ও বলেশ্বরনদীর সঙ্গমস্থলের তীরে অবস্থিত।তিনটি নদীর এই সঙ্গমস্থলটি চিতলমাছের জন্যবিখ্যাত ছিল এবং জেলেরা এই স্থান হতে প্রচুর চিতল মাছ ধরতো।সে কারনে এই তিননদীর সঙ্গমস্থলের তীরের স্থানকে স্থানীয় জনসাধারণ চিতলমারী নামে আখ্যায়িতকরে।